চ্যাংরাবান্ধা দেয়া থেকে দারজেলিং কিভাবে জাবেন?  চ্যাংরাবান্ধা ইন্ডিয়ান বর্ডারে বাংলাদেশের কোন স্থলবন্দর দিয়ে ঢুকবেন ?  দ

উত্তর ১ঃ বাংলাদেশের বুড়িমারি এন ইন্ডিয়ান বর্ডার চেংড়াবান্ধা।দার্জিলিং যেতে চাইলে শ্যামলি পরিবহনের টিকেট নিয়ে নেন শিলিগুড়ি পর্যন্ত।রাতে বাসে উঠলে সকালে বর্ডার পার হয়ে আবার শ্যামলির বাসে শিলিগুড়ি যাবেন।ওখানে শ্যামলির কাউন্টেরর সামনে দার্জিলিং এ যাওয়ার জন্য জিপ পাবেন।এন শেয়ারে যাবেন এন রিজার্ব করেও যাইতে পারেন।দার্জিলিং দুইদিন এ ঘোরা হয়ে যাবে।বাজেট ১০-১৫ হাজার হলে ভাল ট্যুর দিতে পারবেন।

উত্তর ২ঃবাংলাদেশের লালমনিরহাট জেলার বুড়িমারি স্থলবন্দরই ভারতের চেংড়াবান্ধা স্থলবন্দর। একই জায়গার দুই প্রান্তে দুই নাম।

৩ দারজেলিং যাছেন,  কেনাকাটা যেমন কাপড় কি বাংলাদেশ থেকে কিনে নিবেন  না দারজেলিং থেকে কিনবেন?? দারজেলিং এ দাম কেমন হবে??

উটরঃ Darjeeling e winter jackets,sweater maflar egula kom dam thake but onno shobkichu onek pricey

দার্জেলিং যেভাবে যাবেন.. ???

বাংলাদেশ-জলপাইগুড়ি-শিলিগুড়ি-দার্জেলিং

১। টার্গেট জলপাইগুড়িঃ
বিমানঃ
কোলকাতা বা অন্যযেকোন স্থান থেকে
বাগডোগরা এয়ারপোর্ট এ পৌছাতে হবে।
ভাড়াঃ কোলকাতা থেকে বাগডোগরা ৪-৫০০০ টাকার মত নিবে।
ট্রেনঃ
শিয়ালদহ থেকে ট্রেনে NJP(New Jalpaiguri) ষ্টেশনে পৌছাতে হবে।

২। টার্গেট শিলিগুড়িঃ
বিমানে হলে বাগডোগরা এয়ারপোর্ট বা ট্রেনে হলে NJP ষ্টেষন থেকে শিলিগুড়ি যেতে হবে। অটোতে এক একজন ৩০ টাকা করে নিবে।
তবে এয়ারপোর্ট থেকে ভাড়া বেশি নিবে।

৩। টার্গেট দার্জেলিং
শিলিগুড়ি থেকে দার্জেলিং Tata Sumo নামক জিপ টাইপ বাস ছাড়ে। ভাড়াঃ ১৩০ টাকা।
ড্রাইভারকে হোটেলের নাম বললে নামায় দিবে অথবা ডিরেকশন দিয়ে দিবে।

৪। টার্গেট হোটেলঃ
দার্জিলিং নামার পর অনেক হোটেল পাবেন।
সোনার বাংলা, হোটেল পলিনিয়ার… ইত্যাদি।
ভাড়া ১২০০ থেকে ২৫০০

ঘোরাঘুরিঃ
হোটেলের ম্যানেজারকে বললেই গাড়ি ঠিক করে দিবে। প্রাইভেট কার টাইপের গাড়ি। রাতেই ঠিক করতে হবে। সকাল ৪.৩০ টা থেকে শুরু। সারাদিন ঘুরাবে।
গাড়ি ভাড়া ২৫০০ এর মত। ১ জন থেকে ৪ জন বসতে পারবেন। একজন বসলেও যা ভাড়া ৪ জন বসলেও। মানুষ বাড়লে খরচ কম।
যে গাড়ি ব্যবহার করেছিলামঃ
chiten sherpa
car No:WB77A0502
phone: +91 8172028465,8972027660
কথা বলে দেখতে পারেন। ভদ্রলোক একাধারে বাংলা, ইংরেজী, হিন্দী বলতে পারে।

হোটেলের পাশে একটা মসজীদ আছে। এর পাশে মুসলিম হোটেল আছে। খরচ ১ থেকে ১৫০

৬। স্পটঃ

1. Tiger hill(সকাল ৪.৩০ টায় উঠে ঠান্ডার ভিতরে সূর্য উদয় দেখা। পর্যাপ্ত শীতের কাপড় নিতে ভূলবেন না। তাপমাত্রা প্রায়ঃ ৪-৫ ড্রিগ্রি )

2. Rock Garden(খুবই সুন্দর পাহার এবং ঝর্না)

3. Batashia Loop(ভূয়া একটা পার্ক। বউ নিয়ে গেলে উপজাতি সাজার জন্য ড্রেস ভাড়া পাবেন)

4. Monestry Temple (বৌদ্ধ মন্দির)

5.Tea Garden( চা বাগান। সিলেটের মতই)

6. Gangmaya park ( খুবই সুন্দর। পাহার ও ঝর্না)

7. Ropeway ( ক্যবল কারে চড়ে পাহাড় ভ্রমন।বিশাল লাইন। টিকিটঃ১৭৫)

8.Tenjing Rope ( দড়ি বেয়ে পাহাড়ে উঠতে পারবেন। হিমালয় জয়ের ফিলিংস)

9. Zoo (ভূয়া চিড়িয়াখানা। বাংলাদেশের চিড়িয়াখানা এর থেকে ভাল)

10. Humilyian Mounting Institute(HMI) ( চিড়িয়াখানার ভেতরে যাদুঘর। যে পশুগুলো মারা যায় ফর্মালিন দিয়ে রাখে)

11. Japanese Temple (বৌদ্ধ মন্দির)

৭। টার্গেট শপিংঃ
সবকিছুই কোলকাতার থেকে ডাবল দাম। শীতের কাপড় ভাল পাবেন। কোলকাতা হয়ে যাওয়ার প্লান থাকলে কোলকাতা বড় বাজারে দাম অনেক কম।

চক বাজারে যেতে পারেন। প্রচুর বার্গেইনিং। হিন্দি লোকাল টোনে বলতে পারলে কিছুটা প্রাইস কমবে।
অথবা রাস্তার পাশ থেকেও নিতে পারেন। রাস্তার পাশে ফিক্সড প্রাইস দোকান থেকে কিনলেই খরচ কম।

৮। টার্গেট কোলকাতায় ফেরাঃ
বিমান হলে প্রবলেম নেই।
ট্রেনে যেতে চাইলে প্রথম দিনই দারজেলিং পৌছে ট্রাভেল এজেন্সি থেকে অনলাইন এ টিকেট কেটে রাখবেন। ইনসবট্যান্ট টিকিট পাবেন না।

বি.দ্র:
খরচগুলো সময় সময় চেন্জ হয়।ট্যুরিস্ট বেশি থাকলে সেই সিজনে সব খরচ বেশি।
আরও কোন তথ্য জানার থাকলে সরাসরি ফোন দিতে পারেন। মারছুছঃ 01717232354